খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত আপোষহীন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে : যুবদল

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এম.আর মিজান, দিনাজপুর থেকে : দিনাজপুরের মাটি খালেদা জিয়ার ঘাঁটি। এ কথা বুকে ধারণ করে ৫ ডিসেম্বরের পর কেন্দ্রের নির্দেশনা মোতাবেক সকলকে মাঠে নামতে হবে। এ ক্ষেত্রে যুবদলকে শক্তিশালী ভুমিকা পালন করতে হবে। কেননা যুবদল হল, দলের প্রাণ শক্তি। যুবদলের প্রত্যেকটি নেতাকর্মীকে যার যার অবস্থান থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে সামিল হতে হবে। সকল নেতাকর্মীদের মনে রাখতে হবে, আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার পিতৃনিবাস এই দিনাজপুরে। এখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন খালেদা জিয়ার পিতা, মাতা ও বড় বোন। কাজেই বিএনপির জন্য দিনাজপুর একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলা। এ জেলার দিকে তাকিয়ে থাকবে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের অন্যান্য জেলা। সে কারনে আমাদেরকে এবার সেভাবেই প্রস্তুতি নিতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত আপোষহীন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। বর্তমান আওয়ামী জালিমশাহীর সরকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বিনা অপরাধে মাসের পর মাস কারাগারে আটকে রেখেছে। বয়সজনিত নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হবার পরও তারা কোন অবস্থাতে মুক্তি দিচ্ছে না। এ অবস্থায় জিয়ার সৈনিকদের গায়ে এক ফোটা রক্ত থাকা পর্যন্ত ঘরে বসে থাকতে পারে না। সবাইকে সকল ভেদাভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধভাবে খালেদা জিয়া তথা গণতন্ত্র মুক্তির আন্দোলন জোরদার করতে হবে।
৩ ডিসেম্বর মঙ্গলবার দিনাজপুর জেলা বিএনটি কার্যালয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী যুবদলের সদর উপজেলা আহŸায়ক কমিটির পরিচিতি সভা এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আশু আরোগ্য ও কারা মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিলে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। সদর উপজেলা যুবদলের আহŸায়ক শামীম আক্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা যুবদলের সভাপতি মোন্নাফ মুকুল। প্রধান বক্তা ছিলেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুল ইসলাম মাসুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মকসেদুল ইসলাম টুটুল। বক্তব্য রাখেন, সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান মুকুল, রায়হান সরকার মিন্টু, মঞ্জুর মুর্শেদ সুমন, ধর্ম সম্পাদক রুহান হোসেন, ক্রীড়া সম্পাদক সোহেল, কোষাধ্যক্ষ রাশেদুজ্জামান রুপম প্রমুখ। সদর উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহŸায়ক নাজমুল হোসেনের সঞ্চালনায় এতে আরো উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহŸায়ক খাদেম চৌধুরী, মোঃ আরাফাত হোসেন, আবেদুর রহমান, আকবর হোসেন, রেজাউল ইসলাম রেজা, মোজাম্মেল হক, শরিফুল ইসলাম, সোলায়মান সরকার, আব্দুস সামাদ, আজাদ রহমান, জালাল উদ্দীন, ফরিদুল ইসলাম, ইসমাইল হোসেন, মোস্তাক চৌধুরী, আব্দুস সামাদ। শেষে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আশু আরোগ্য ও কারা মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*