ধর্ষণ মামলায় ছাত্র অধিকারের নেতা নাজমুল রিমান্ডে

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডটকম : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর করা ধর্ষণের মামলায় ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসানকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের (সিএমএম) ম্যাজিস্ট্রেট কনক বড়ুয়া এই আদেশ দেন।

এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের অপরাধ ও তথ্য বিভাগের উপপরিদর্শক শরিফ উদ্দিন।

কোতোয়ালি থানায় করা এই মামলায় নাজমুল হাসানকে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়। বলা হয় ঘটনার রহস্য উদঘাটনের জন্য আসামিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।

আসামি নাজমুল হাসান সোহাগের আইনজীবী এ বি এম রুহুল আমিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন বাতিল করে তাঁর জামিন আবেদন করেন। আদালত উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে নাজমুলের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এই মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন সাইফুল ইসলাম ও নাজমুল হুদা।

গত ২২ সেপ্টেম্বর ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজমুল হাসান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হকসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অপহরণ, ধর্ষণ, ধর্ষণে সহযোগিতা ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন ওই শিক্ষার্থী। মামলার ১ নম্বর আসামি নাজমুল হাসান ও ৩ নম্বর আসামি নুরুল হক। বাকি আসামিরা হলেন পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সাইফুল ইসলাম, সহসভাপতি মো. নাজমুল হুদা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মো. আবদুল্লাহ হিল বাকী।

মামলায় নুরুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি মীমাংসা করার নামে ওই ছাত্রীকে ডেকে নিয়ে শাসিয়েছেন। বলেছেন, বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে তাঁদের ভক্তদের দিয়ে ওই ছাত্রীর নামে ‘উল্টাপাল্টা’ প্রচার করাবেন।

নুরুলের উত্থান সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলন থেকে। ওই আন্দোলনের মাধ্যমে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ আত্মপ্রকাশ করে। সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময়, ডাকসু নির্বাচনের আগে ও পরে এবং ভিপি নির্বাচিত হওয়ার পর ডাকসু ভবনেও হামলার শিকার হন তিনি। সম্প্রতি তিনি রাজনৈতিক দল গঠনেরও ঘোষণা দেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*