নাটক: ‘দানেশ উপাখ্যান’

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নাটকের সারমর্ম: ঐতিহাসিক তেভাগা আন্দোলন এর প্রবাদ পুরুষ হাজী মোহাম্মদ দানেশ এর সংগ্রামী জীবনের ছায়া অবলম্বনে নাটক ‘দানেশ উপাখ্যান’।
বিশিষ্ট নাট্যকার ড. টিটো রেদওয়ান এর রচনা, নির্দেশনায় নাকটটি প্রযোজনা করেছে দিনাজপুরের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে অন্যতম সংগঠন ভৈরবী। নাকটটির প্রেক্ষাপটে সম্পর্কে জানা যায়, বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী যে কজন বরেণ্য ব্যক্তির নাম আছে তাদের মধ্যে অন্যতম একজন হাজী মোহাম্মদ দানেশ। বৃহত্তর দিনাজপুরের মেহনতি মানুষের মুক্তির সংগ্রামে আজীবন নিজেকে উৎসর্গ করেছেন এই বিপ্লবী নেতা। বিশেষ করে ভূমিহীন ও প্রান্তিক চাষিদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে তিনি ‘তেভাগা’ আন্দোলনের সঠিক নেতৃত্ব দিয়ে আজও কিংবদন্তী হয়ে আছেন। বৃটিশ শাসনকালে জেল, জুলুম, হুলিয়া ও স্থানীয় জমিদারদের নির্যাতন-নিপীড়ন হাসিমুখে বরণ করে নিয়েছিলেন এই মহান বিপ্লবী নেতা শুধুমাত্র কৃষক, শ্রমিক ও মেহনতি মানুষের মুখে এক চিলতে হাসি ফোটানোর জন্য। প্রান্তিক কৃষকদের ন্যায্য দাবি আদায়ের লক্ষে বৃটিশ শাসনামলের শেষ দিকে কমিউনিস্ট পার্টির সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের লক্ষে ১৯৪৬ খ্রি. ঐতিহাসিক তেভাগা আন্দোলন গড়ে উঠেছিল তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে। ইতিহাসখ্যাত এই আন্দোলনে হাজী মোহাম্মদ দানেশ এর সংগ্রামী জীবনের বীরত্বগাঁথাই হলো ‘দানেশ উপাখ্যান’ নাটকের মূল বিষয়।
ভৈরবী সম্পর্কে দুটো কথা: বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব, ধর্মনিরপেক্ষতা ও সাংবাধানিক মূলনীতির উপর ভিত্তি রেখেই ভৈরবীর আত্মপ্রকাশ। বাংলাভাষা ও বাঙালিয়ানাকে লালন করে বাঙালি সংস্কৃতিকে বিশ^দরবারে প্রতিষ্ঠার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে ভৈরবীর পদচলা। প্রাতঃকালের রাগ ভৈরবী’র সাথে মিলিয়ে এই সংগঠনের নামকরণ করা হয় ভৈরবী। ১৭ ফেব্রæয়ারি ২০০৪ খ্রি. দিনাজপুরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে ভৈরবী আত্মপ্রকাশ করে। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ রহমতুল্লাহর নেতৃত্বে শিল্পের হাত ধরে গুটি গুটি পায়ে ভৈরবী আজ দ্বাদশ বর্ষে পদার্পন করেছে। জন্মলগ্ন থেকেই ভৈরবী স্বাধীনতা ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধীসহ সকল অপশক্তিকে প্রতিহত করার লক্ষে সংগীত, চিত্রাঙ্কন, তবলা, বেহালা, গিটার, নৃত্য, আবৃত্তি, অভিনয় শিক্ষা ও কর্মশালার আয়োজন করে আসছে। বাংলাদেশের নাট্যচর্চার পথিকৃত সংগঠন ‘বাংলাদেশ গ্রæপ থিয়েটার ফেডারেশন’ এর সদস্যপদ প্রাপ্তি ভৈরবী’র অন্যতম একটি অর্জন। বিভিন্ন সাংস্কৃৃতিক কর্মকান্ডে পাশাপাশি দিনাজপুরের নাট্যচর্চাতে ভৈরবী প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে প্রতিবছর নিয়মিত নাটক প্রযোজনা করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় ভৈরবী নিজস্ব ব্যানারে ‘দানেশ উপাখ্যান’ নাটকটি মঞ্চস্থ করছে।
‘দানেশ উপাখ্যান’ নাকটটির বিভিন্ন চরিত্রে যারা অভিনয় করেছেন তারা হলেন:-

হাজী দানেশ
সূত্রধর-১, ভাগুনী
দারোগা-১, হিন্দু নেতা
পুলিশ-১, নিতাই
পুলিশ-১
মেজর, মুসলিম নেতা, বশির
জমিদার
কেষ্ট, বিনয়, চাপরাশি, সিপাই
চাষি, শিবরাম মাঝি
বাঈজী, ফুলেশ^রী
খুকী, মেয়ে
সূত্রধর-২, কালিরাম
মহাজন
লাঠিয়াল
নেন্দেলা মোঃ রহমতুল্লাহ
হেমপ্রভা
নিতাই রায়
পাপ্পু
আলআমিন
নিমাই চাঁদ
লেলিন নাগ
শাহাজান
দুলাল বসাক
অর্চনা দেবী সরেন
ছন্দা চক্রবর্তী
মোঃ নুর ইসলাম
সুনীল মজুমদার
মোহন রায়
ধারনা রায়

নেপথ্য কুশীলব
বেহালা
ঢোল
হারমোনিয়াম
নৃত্য
পোশাক
মঞ্চ
আলো
সংগীত সুনীল মজুমদার
মানিক
দুলাল বসাক, গীতা রায়
অর্চনা দেবী সরেন
মাসুদা খাতুন
নূর ইসলাম
তাহের
ড. টিটো রেদওয়ান
নাটকটি একাধিকবার বিভিন্ন মঞ্চে মঞ্চায়িত হয়েছে। দিনাজপুরে ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন ভৈরবীর প্রয়োজনায় ‘দানেশ উপাখ্যান’ নাটকটি পাবনার বনমালী শিল্পকলা কেন্দ্রে আগামী ২৯ নভেম্বর’ সন্ধ্যা ৬-৩০মি. ১০ম বারের মত মঞ্চস্থ হতে যাচ্ছে।
আমরা জানি, নাটক জীবনের কথা বলে ও সুন্দর আগামীর দিক নির্দেশনা দেয়।

বার্তা প্রেরক: রাজু বিশ্বাস, দিনাজপুর থেকে ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*