নৌকা মার্কা নিয়ে হাজির হবো সহযোগিতা পেলে : মেয়র টুটুল

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আব্দুর রাজ্জাক, বিশেষ প্রতিনিধি : দিনাজপুরের বিরামপুর পৌর আওয়ামীলীগের ৭নং ওয়ার্ড শাখার আয়োজনে ৬ নভেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যায় শিমুলতলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বর্ধিত সভায় পৌরসভার মেয়র লিয়াকত আলী সরকার (টুটুল) তাঁর বক্তব্যের মধ্যে একথা বলেন।

মেয়র আরও বলেন, আপনারা আমাকে যেখানেই ডেকেছেন, আমি সেখানেই হাজির হয়েছি। কেউ বলতে পারবেন না আমি কাউকে অসম্মান করেছি। তারপরেও আমার চলাচলের মধ্যে ভূল থাকতে পারে। আমার ভুল যেটা হয়েই গেছে আপনারা আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। আমি আওয়ামীলীগের সহযোগিতা পেয়েছি। আপনাদের সামনে ইনশাআল্লাহ আপনাদের সহযোগিতা পেলে আমি নৌকা মার্কা নিয়ে হাজির হবো।

তিনি আরও বলেন, বিগত যে নির্বাচন, আমি নির্বাচিত হয়েছিলাম, আমার বাবা নির্বাচনের ২ মাস আগে মারা গেলেন। তারপর আমি পৌর আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্বাচন পরিচালনা করেছিলাম। তারা আমাকে সমর্থন দিয়েছিল। আমি রাজনৈতিক পরিবারের ছেলে। আমার বাবা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বিরামপুর থানায় ছিলেন দীর্ঘ ১৭/১৮ বছর। আমি আওয়ামীলীগের সন্তান। পৌরসভা একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। তারপরও আমি রাষ্ট্রীয়, আওয়ামীলীগের প্রোগ্রাম, এমপি সাহেবের প্রোগ্রাম, সব প্রোগ্রামেই আমি সহযোগিতা পেয়েছি।

মেয়র আরও বলেন, আমি আপনাদের কাছে একটি কথায় বলতে চাই- আমি দীর্ঘ পাঁচ বছর পৌরসভা মেয়রের দায়িত্বে ছিলাম। অন্যান্য ওয়ার্ডের তুলনায় আমি আপনাদের ৭নং ওয়ার্ডে পর্যাপ্ত কাজ করার চেষ্টা করেছি। কারণ এই ওয়ার্ডবাসী আমি মনে করি আমাকে মেয়র নির্বাচিত করেছে। এই ওয়ার্ডটা কিন্তু আওয়ামীলীগের ওয়ার্ড। এই জায়গায় যদি আমি কোন ভোট না পেতাম তাহলে আমি মেয়র নির্বাচিত হতে পারতাম না। আপনাদের ঋণ আমি শোধ করতে পারবো না। তারপরেও আমি চেষ্টা করেছি যে যেখানে বলেছেন এই রাস্তা, এই খাঁদ, এই কালভার্ট। তারপরও আমি পৌরসভার সমস্ত কাজ করতে করতে পারিনি। এই কাজ করার পরে শেষের পথে আরও কিছু করবো এই এলাকার জন্য কিন্তু এই করোনার কারণে আমি কোন কাজ করতে পারিনি। এই জন্য আপনারা আমাকে ক্ষমা করে দিবেন। আমি আপনাদের মেয়র হয়েছি। আমাকে সবাই টুটুল বলেই সম্বোধন করেছেন।

মেয়র লিয়াকত আলী সরকার টুটুল তাঁর বক্তব্যে আরও বলেন, আজকে যে পৌর আওয়ামীলীগ, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের মিটিং হচ্ছে, এই মিটিং কিন্তু আওয়ামীলীগের মিটিং এটা কোন প্রার্থীর মিটিং নয়। আমরা চাই সংগঠন গতিশীল করার জন্য। এই সংগঠন গতিশীল হলে আমি নৌকা পাই আর যেই নৌকা পাক আমরা কিন্তু তাঁরই নির্বাচন করবো। এই সংগঠন নিয়েই আমরা তাঁর পেছনে ঝাঁপিয়ে পড়বো।

তিনি আরও বলেন, আমি আশাবাদী আপনাদের দোয়া ও সহযোগিতা পেলে আমি আপনাদের সামনে এই নৌকা মার্কা নিয়ে হাজির হতে পারবো। আপনারা আমার জন্য দোয়া করবেন। নেত্রীর জন্য দোয়া করবেন, আমার এমপি মহোদয় চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর গেছেন। ওনার জন্য দোয়া করবেন। আমার এমপি মহোদয় যদি না থাকতো আমি কিন্তু আপনাদের এই উন্নয়নগুলো করতে পারতাম না। যতগুলো কাজ করেছি এমপি সাহেবের সহযোগিতা নিয়েই কাজগুলো করেছি। যেই উন্নয়ন করতে যান, এমপি সাহেবের কিন্তু সহযোগিতা প্রয়োজন। এমপি ছাড়া আপনি এক ইঞ্চি উন্নয়ন করতে পারবেন না। আমি এমপির আস্থাভাজন। বিগত বছরগুলোতে আমি এমপি সাহেবের সঙ্গে ছিলাম।

পরিশেষে তিনি বলেন, আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে জননেত্রী শেখ হাসিনার নৌকা প্রতিক যদি আমি নিয়ে আসি, অবশ্যই আপনারা আমাকে সহযোগিতা করবেন।

৭নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি রতন কুমার মহন্তর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন বিরামপুর পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি রুহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) সাইফুল ইসলাম বাবু, সদস্য আহসান হাবীব রিপন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ন আহবায়ক মেহেদী হাসান, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা আদনান হোসেন চন্দন প্রমুখ।

অন্যান্য বক্তারা ৭নং ওয়ার্ড কমিটিকে সুসংগঠিত হয়ে গতিশীল ও বেগবান করার বিষয়ে আলোচনা করেন, আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী লিয়াকত আলী সরকার টুটুলের উন্নয়নমূলক কাজগুলো তুলে ধরেন এবং আবারও মেয়রকে সহযোগিতা, সমর্থন করার জন্য নেতাকর্মীসহ সবার কাছে আহবান জানান।

বর্ধিত সভাটি সঞ্চালনা করেন উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মুরাদ ইসলাম।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*