প্রিয়া সাহাকে অবশ্যই ‘অভিযোগ’ প্রমাণ করতে হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডটকম : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে করা ‘অভিযোগ’ অবশ্যই প্রমাণ করতে হবে প্রিয়া সাহাকে, অন্যথায় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আজ ধানমন্ডিতে তার সরকারি বাসভবনে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, প্রিয়া সাহা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে যে অভিযোগ করেছেন, তার প্রমাণ তাকেই করতে হবে, অন্যথায় মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও মনগড়া তথ্য প্রদানের জন্য তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যদি তিনি তা প্রমাণ করতে ব্যর্থ হন, তবে তাকে আইনগত ব্যবস্থার সম্মুখিন হতে হবে বলে জানান মন্ত্রী।
সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ‘স্থায়ীভাবে দমনের’ শিকার হচ্ছেন, এই অভিযোগ সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, আমি গত সাড়ে সাত বছরে এমন ধরনের কোন ঘটনা দেখিনি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কোথায় এমন ঘটনা ঘটেছে এবং কারা এর শিকার সে সম্পর্কে আমার কোন ধারনা নাই… আমি জানি না কেন তিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের কাছে এমন মিথ্যা অভিযোগ করেছেন।
বাংলাদেশের নাগরিক প্রিয়া সাহা যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনে ১৬ জুলাই থেকে ১৮ জুলাই মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরে আয়োজিত ধর্মীয় স্বাধীনতার অগ্রগতি শীর্ষক দ্বিতীয় মন্ত্রী পর্যায়ে আলোচনায় অংশ নেন।
সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেওর আমন্ত্রণে এতে বিভিন্ন দেশের ৪০ জন পররাষ্ট্র মন্ত্রীসহ ১০৬ দেশের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।
বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্যপরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহাকে অন্যান্য বিষয়ের সঙ্গে বাংলাদেশ থেকে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান গুম হয়ে গেছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলতে দেখা যায়। তাকে আরো বলতে শোনা যায় তার জমি মুসলিম উগ্রবাদিরা দখল করে নিয়েছে এবং বাংলাদেশে যাতে হিন্দু-বৌদ্দ-খ্রিস্টানরা বসবাস করতে পারে সেজন্য তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে সাহায্য চান।
এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যে অভিযোগ প্রিয়া সাহা করেছেন, তাকে তা প্রমাণ করতে হবে। তাকে প্রমাণ দিতে হবে যে, কোথায় এ ঘটনা ঘটেছে, কাদের বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে এবং আমরা তা সঠিকভাবে তদন্ত করিনি।
তিনি বলেন, আমি বিশ্বাস করি এই মিথ্যা বক্তব্যের পিছনে নিশ্চয়ই কোন কারণ আছে। তার কোন উদ্দেশ্য থাকতে পারে। আমরা অবশ্যই তার কাছে জানতে চাইবো কোথায় এবং কখন এ ঘটনা ঘটেছে, তাকে তার সঠিক জবাব দিতে হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*