বাংলাদেশে বছরে ২৩ হাজার অপরিপক্ব অবস্থায় জন্ম নেয়া শিশু মারা যায়

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডটকম (রংপুর) :  বাংলাদেশে প্রতিবছর ছয় লাখের বেশি শিশু (মোট শিশু জন্মের ১৯ শতাংশ) সায়ত্রিশ সপ্তাহের আগেই অপরিপক্ব অবস্থায় জন্ম নেয়। এর মধ্যে বছরে তেইশ হাজারের বেশি সংখ্যক শিশু এ সংক্রান্ত জটিলতায় পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই মারা যায়।
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা আজ সোমাবার ( ১৮ নভেম্বর) বিকেলে ইউনিসেফ এর সহযোগিতায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মিলনায়তনে ওয়ার্ল্ড প্রিম্যাচিওরিটি ডে-২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় এ তথ্য জানান।
’সুস্থ নবজাতকের জন্ম নিশ্চিত করার জন্য সঠিক সময়ে সঠিক স্থানে যথাযথ সেবা নিশ্চিত করা’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এবছর বিশ্ব ব্যাপী ওয়ার্ল্ড প্রি ম্যাচিওরিটি ডে পালিত হয়।
রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ মোঃ ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত গোলটেবিল আলোচনা সভায় আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইউনিসেফ রংপুর ফিল্ড অফিসের প্রধান নাজিবুল্লাহ হামীম এবং রংপুর বিভাগের পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ মোস্তোফা খালেদ আহমেদ।
ইউনিসেফ এর স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ নাজমুন নাহারের সঞ্চালনায় গোলটেবিল আলোচনায় আরো বক্তব্য রাখেন রংপুরের সিভিল সার্জন ডা: হিরম্ব কুমার রায়, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের রংপুরের বিভাগীয় পরিচালক ডাঃ দেলোয়ার হোসেন, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ কামরুজ্জামান ইবনে তাজ, প্রাইম মেডিক্যাল কলেজের শিশু বিভাগীয় প্রধান ডাঃ চঞ্চল মন্ডল, রংপুর মেডিক্যাল কলেজের শিশু বিভাগের কনসাল্টেন্ট ডাঃ মনিকা মজুমদার, ডাঃ রৌশন আরা, ডাঃ জাহিদুর রহমান এবং অন্যান্য শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকবৃন্দ।
বক্তারা বলেন, সারা বিশ্বে প্রতি বছর প্রায় দেড় কোটি শিশু সায়ত্রিশ সপ্তাহের আগেই অপরিপক্ব অবস্থায় জন্ম নেয়। এর মধ্যে দশ লক্ষ শিশু পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই প্রতিবছর এ সংক্রান্ত জটিলতায় মারা যায়। পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই বাংলাদেশে প্রতি বছর এ সংক্রান্ত জটিলতায় তেইশ হাজারের বেশি সংখ্যক শিশু মারা যায়।
তারা বলেন, নবজাতক শিশু মৃত্যুর ৩১ শতাংশ কেবলমাত্র নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্ম গ্রহণ সংক্রান্ত সৃষ্ট জটিলতায় হয়ে থাকে।
গোলটেবিল আলোচনায় রংপুর বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল থেকে আগত স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞগণ কম বয়সে গর্ভাবস্থা, ইনফেকশন, ডায়বেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপকে সায়ত্রিশ সপ্তাহের আগেই অপরিপক্ব অবস্থায় জন্ম নেয়ার কারন হিসেবে উল্লেখ করেন।
তারা উন্নত মানের প্রসব পূর্ববর্তী সেবা, পুষ্টি, গর্ভাবস্থায় ইনফেকশন শনাক্তকরণ ও চিকিৎসা নিশ্চিত করা, ডায়বেটিস এবং উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি গ্রহণ এবং জন্ম পরবর্তী নবজাতক ও মাতৃসেবা নিশ্চিত করার মাধ্যমে অপরিপক্ব অবস্থায় শিশু জন্ম নেয়ার প্রতিকার ও চিকিৎসার ওপর গুরুত্ব দেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*