বাফুফে-ইউনিসেফ অ-১৬ মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের চূড়ান্ত খেলা শুরু শনিবার

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডট কম: আগামী শনিবার থেকে ঢাকার কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে শুরু হবে ‘বাফুফে-ইউনিসেফ অনুর্ধ-১৬ জাতীয় মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ (ট্যালেন্ট হান্ট)’-এর চূড়ান্ত পর্বের খেলা শুরু হবে। দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে এতে অংশ নেবে আটটি দল।

‘ক’ গ্রুপে আছে ময়মনসিংহ, লালমনিরহাট, গোপালগঞ্জ ও রাঙামাটি জেলা। ‘খ’ গ্রুপে আছে মাগুরা, খাগড়াছড়ি, রাজশাহী ও নারায়ণগঞ্জ জেলা। শনিবার দুপুর ২টায় প্রথম ম্যাচে মুখোমুুখি হবে ময়মনসিংহ-রাঙামাটি।

চূড়ান্ত পর্বের প্রতিটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ৭০ মিনিটব্যাপী (৩৫+৩৫ মিনিট, প্রথমার্ধ শেষে বিরতি থাকবে ১০ মিনিটের)।

গত ২০ জুন থেকে এই আসরের প্রথম পর্বের খেলা দেশের ছয়টি ভেনুতে শুরু হয়েছিল। ৩৯টি জেলা দল ছয়টি গ্রুপে ভাগ হয়ে খেলেছিল। ৬ গ্রুপে চ্যাম্পিয়ন এবং সেরা দুই গ্রুপ রানার্সআপকে নিয়ে ঢাকায় হবে চূড়ান্ত পর্বের লড়াই। রাঙামাটি এবং নারায়ণগঞ্জ জেলা দল দুটি হচ্ছে সেরা দুই রানার্সআপ দল।

চূড়ান্ত পর্বে ৮টি দল খেলবে দুই গ্রুপে ভাগ হয়ে। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর রানার্সআপ উঠবে সেমিফাইনালে, তারপর ফাইনাল। ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ২৭ জুলাই, বিকেল ৪টায়।

চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ৫০ হাজার এবং রানার্সআপ দল পাবে ২৫ হাজার টাকা পুরস্কার। অংশগ্রহণ ফি বাবদ প্রতিটি দল পাবে ১৫ হাজার টাকা করে। চ্যাম্পিয়ন ট্রফি, রানার্সআপ ট্রফি, ফেয়ার প্লে ট্রফি, সর্বোচ্চ গোলদাতা ও সেরা খেলোয়াড়ের জন্য ট্রফি দেয়া হবে।

এই আসর থেকে বাছাই করা খেলোয়াড়দের দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। প্রাথমিক পর্বের খেলা দেখে ইতোমধ্যেই বেশ কজন ফুটবলারকে (সংখ্যাটি জানাতে চায়নি বাফুফে) ক্যাটাগরি-১, ২ ও ৩ -এর ভিত্তিতে বাছাই করেছে বাফুফে। জাতীয় মহিলা ফুটবল দলের হেড কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন এবং সহকারী কোচ মাহবুবুর রহমান লিটু প্রাথমিক পর্বের খেলাগুলো দেখে এই খেলোয়াড়দের বাছাই করেন। চূড়ান্ত ভাবে বাছাই করা হবে ক্যাটাগরি ১ ও ২ থেকে। ক্যাটাগরি ৩- এর খেলোয়াড়রা থাকবে অপেক্ষমান তালিকায়। প্রয়োজন হলে পরে তাদের ডাকা হবে। খেলোয়াড় বাছাই প্রক্রিয়া আগামী এক মাসের মধ্যে শেষ হবে। তারপর বাছাইকৃত খেলোয়াড়দের নিয়ে দুই মাসের একটি ট্রেনিং ক্যাম্প হবে। এখান থেকে আবারও একটি চূড়ান্ত বাছাই হবে। যারা টিকে যাবে, তাদের অ-১৬ জাতীয় দলসহ অন্যান্য বয়সভিত্তিক জাতীয় দলে খেলার জন্য সুযোগ দেয়া হবে। তবে চূড়ান্ত পর্বের বাছাইয়ে যারা বাদ পড়বে, তাদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই। কারণ বাফুফের বিবেচনায় থাকবে তারাও।

বাছাই হওয়া ফুটবলারদের শুধু ফুটবল প্রশিক্ষণই দেবে না বাফুফে, তাদের শেখানো হবে বিভিন্ন আত্মরক্ষামূলক কলা-কৌশলও। তাদের মা-বাবাকেও বিভিন্ন বিষয়ে গ্রুমিং করাবে বাফুফে।

এই আসরের চূড়ান্ত পর্বের খেলা শুরু উপলক্ষ্যে বাফুফে ভবনে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন ফিফা কাউন্সিল মেম্বার, এএফসি এবং বাফুফের সদস্য এবং বাফুফের মহিলা ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ, ইউনিসেফের কমিউনিকেশন, এ্যাডভোকেসি এ্যান্ড পার্টনারশিপ সেকশন অফিসার ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*