বিরামপুরে করোনা সন্দেহে আইসোলেশনে থাকা শিশু ও মেডিক্যাল এ্যাসিসট্যান্ট করোনায় আক্রান্ত নয়: ডাঃ মেহেদী

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আব্দুর রাজ্জাক, বিশেষ প্রতিনিধি– দিনাজপুরের বিরামপুরে করোনা সন্দেহে গত ২৩ মার্চ সোমবার এক ৮ বছরের শিশু ও এক মেডিকেল এ্যাসিসট্যান্টকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আইসোলেশনে ভর্তি করা হয়। বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ সোলায়মান হোসেন মেহেদী বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করে জানিয়েছিলেন, তাদের শরীরে জ্বর, শ্বাসকষ্ট, সর্দিসহ করোনার সব লক্ষণ ছিল।

সেসময় দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. আব্দুল কুদ্দুস সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, ওই শিশু দিনাজপুর জেলায় করোনা সন্দেহে আইসোলেশনে ভর্তি হওয়া প্রথম রোগী।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ওই শিশুর বাড়ি হাকিমপুর উপজেলার ভারতের সীমান্তবর্তী একটি গ্রামে।

গত মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) দুপুরে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত একজন মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্টের জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে তৎক্ষণাৎ তাকে আইসোলেশনে নিতে এবং তার পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার নির্দেশ প্রদান করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ডাঃ মোঃ সোলায়মান হোসেন মেহেদী আজ বুধবার সন্ধ্যায় (১ এপ্রিল) পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডটকমের বিশেষ প্রতিনিধিকে মুঠোফোনে জানান, শিশু ও মেডিক্যাল এ্যাসিস্ট্যান্ট মোট ২ জনের করোনার নমুনা সংগ্রহ করে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান-আইইডিসিআর এ নমুনা পাঠানো হয়েছিল। তাদের দুজনেরই পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ যা কোন রকম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া যায়নি।

এছাড়াও কুমিল্লায় ইতালি ফেরত প্রবাসীর বাড়িতে কাজ করে জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্ট, গলাব্যথা নিয়ে বিরামপুর উপজেলার জোতবানী ইউনিয়নের তফসী গ্রামে গত ৩০ মার্চ সোমবার ভোরে নিজ বাড়িতে করোনা উপসর্গে ৩২ বছরের এক ব্যক্তির মৃত্যু ঘটে। ঐ বাড়িসহ আশপাশের বেশ কিছু বাড়ির লোকজনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। সেই মৃত ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আইইডিসিআর থেকে এখন পর্যন্ত হাতে আসেনি বলে তিনি জানান।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*