বিরামপুরে জয়িতা অন্বেষণে সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন নিগার সুলতানা

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আব্দুর রাজ্জাক, বিশেষ প্রতিনিধি- দিনাজপুরে বিরামপুর জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ এর আওতায় ক্যাটাগরিতে উপজেলার জোতবানী ইউনিয়নের সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন নারী নিগার সুলতানা। তার শিক্ষাগত যোগ্যতা বিএ (অর্নাস) পাশ তাঁর একটি কন্যা সন্তান রয়েছে যাঁর নাম মেহেক। নিগার সুলতানার বাড়ি উপজেলার জোতবানী ইউনিয়নে। মাতা- জোন্সারা বেগম, পিতা- মজিবর উদ্দিন মন্ডল।

বিরামপুর উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক দপ্তরের আয়োজনে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস-২০২০ উদযাপন উপলক্ষে ৯ ডিসেম্বর বুধবার বিরামপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে ক্রেস্ট ও সনদ প্রদানের মাধ্যমে তাকে ‘সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন যে নারী’ ক্যাটাগরিতে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে।

নিগার সুলতানা জানান, ছোটবেলা থেকে নিজের পড়াশোনার অবসরে প্রতিবেশী শিশুদের লেখাপড়া শেখাতেন। পরে তিনি অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করে প্রতিবেশি দরিদ্র শিশুদের বিনামূল্যে পোশাক সেলাই করে দেন এজন্য প্রতিবেশীরা তার অনেক প্রসংশা করতেন।

সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদানের নিগার সুলতানা বিভিন্ন ধরনের কারিগরি প্রশিক্ষন গ্রহণ করেন প্রশিক্ষনের সনদপত্র নিয়ে ঢাকায় চলে যান। ঢাকার বস্তির নারীদের বিনামূল্যে কারিগরি প্রশিক্ষণ দেন। পারিবারিক ও সামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে মাদক সেবনের কুফল শিশুদের স্কুলমূখী করেন বাল্যবিবাহের কুফল ছেলে ও মেয়ে শিশুদের বৈষম্য না করা পারিবারিক গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করেন।

২০১৩ সালে ঢাকা থেকে বিরামপুরে চলে আসেন ও ১৫ জন নারীকে বিনামূল্যে হস্তশিল্পের প্রশিক্ষণ দেন। তদের আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে সামাজিক ও পারিবারিক উন্নয়নের যাত্রা শুরু করেন। প্রতিমাসে একবার হলেও পরিবারের মধ্যে যারা মাদকাসক্ত তদেও সাথে কথা বলেন। পরবর্তিতে তিনি ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ নামে একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করার সুযোগ পান। সেখানে তিনি অপরাজিতা উন্নয়ন মূলক সূত্রে নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন, নারী নেতৃত্ব বিকাশ নিয়ে কাজ করেন।

২০১৫ সালে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের অধিনে তার সংস্থাটি নিবন্ধিত করেন। তিনশ’র অধিক নারীকে এই সংস্থার সদস্যপদে সংযুক্ত করেন। তাদের বিনামূল্যে হস্তশিল্পের প্রশিক্ষণ দেন। যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রও এই সদস্যদের প্রক্ষিশনের ব্যবস্থা করেন। তিনি করোনাভাইরাসকালিন ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে মাস্ক সহ আরো নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস বিতরণ করেন। পিছিয়ে পড়া ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী আদিবাসিদের তার সংস্থায় যুক্ত করেন। তিনি নারী ও শিশু নির্যাতন সহ সমাজের সমস্যা সহ বিভিন্ন সমাধানের সহযোগিতা করেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*