বেসরকারি খাতেও পেনশন চালু করা হবে : তথ্যমন্ত্রী

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডটকম : তথ্যমন্ত্রী . হাছান মাহমুদ বলেছেন, সরকারি খাতের মতো বেসরকারি খাতেও পেনশন চালু করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে।
তিনি বলেন, আমাদের পরিকল্পনা আছে সর্বক্ষেত্রে পেনশন চালু করা। এখন তো শুধু সরকারি ক্ষেত্রে পেনশন চালু আছে। সব ক্ষেত্রে পেনশন চালু নেই। কিন্তু ইউরোপের যে দেশগুলো সামাজিক কল্যাণমূলক দেশ, সেখানে সব ক্ষেত্রে পেনশন চালু আছে। বেসরকারি উদ্যোক্তাকেও তার কর্মীর জন্য টাকা দিতে হয়। অর্থাৎ সব মানুষ পেনশন স্কীমের আওতায়। ৬৫ বছরের বেশী নাগরিকরা যাতে বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা পান সেই লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
মন্ত্রী আজ চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে দি সিনিয়র সিটিজেন সোসাইটির সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
দি সিনিয়র সিটিজেন সোসাইটির সভাপতি দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম মালেক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে সম্মানীয় অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র নাছির উদ্দীন।
তথ্যমন্ত্রী এসময় আরো বলেন, ‘আমার স্পষ্ট মনে আছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বয়স যেদিন ৬০ বছর পূর্ণ হয়েছে, তিনি বললেন, আমার এখন ৬০ বছর, আমি বুড়ো হয়ে গেছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশের দুস্থ প্রবীণ নাগরিকদের কথা মাথায় রেখেই বয়স্ক ভাতা চালু করেছেন। প্রতিবছর বয়স্ক ভাতার পরিধি পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পরিকল্পনা হচ্ছে, বাংলাদেশ একটি সামাজিক কল্যাণমুখী রাষ্ট্র হবে, মানবিক রাষ্ট্র হবে। আমরা বাংলাদেশ উন্নত করার পাশাপাশি একটি সামাজিক কল্যাণমুখী রাষ্ট্র গঠন করতে চাই। উন্নত দেশ গঠন করা আর কল্যাণমুখী মানবিক রাষ্ট্র গঠন করার মধ্যে ভিন্নতা আছে।
গত সংসদে মাবাবার ভরণপোষণ সম্পর্কে আইন পাশ হয়েছে। কোন সন্তান যদি বাবামায়ের প্রতি কর্তব্য পালন না করেন, তাহলে সেই আইন অনুযায়ী বাবামা এখন আদালতে যেতে পারেন এবং এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এই আইনে মামলাও হচ্ছে। এই আইনটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার করেছে বলে তথ্যমন্ত্রী তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, পৃথিবীতে ক্রমাগত মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে। স্বাধীনতার পর আমাদের গড় আয়ু ছিল ৩৯ বছর। এখন সেটি ৭৩ বছর। ভারতে গড় আয়ু ৭১ বছর, পাকিস্তাÍনে ৬৮ কিংবা ৮৯ বছর। পৃথিবীতে স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দৌড়গোড়ায় পৌছার এবং চিকিৎসা বিজ্ঞানের কল্যাণে গড় আয়ু বেড়েছে। ধারণা করা হচ্ছে আগামী শতাব্দি নাগাদ পৃথিবীতে মানুষের গড় আয়ু শতক ছাড়িয়ে যাবে।
এই প্রেক্ষাপটে প্রবীণ নাগরিকদের দেখভাল করা এবং সামগ্রিক পরিকল্পনায় এই বিষয়টিকে অন্তর্ভুক্ত করা অতীতের যে কোন সময়ের তুলনায় অনেক বেশী গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে প্রতি বছর জনসংখ্যা বাড়ে ২০ থেকে ২২ লক্ষ। অর্থ্যাৎ প্রতি পাঁচ বছরে এক কোটি মানুষ বাড়ে। আমাদের দেশের লোকসংখ্যা যখন ২২২৫ কোটিতে গিয়ে দাঁড়াবে তখন এরপর আর জনসংখ্যা বাড়বে না। তখন কিন্তু প্রবীণ নাগরিক বাড়বে।
এছাড়াও ভিশন ২০২১ এর পরিকল্পনায় এই বিষয়গুলোকে অন্তর্ভুক্ত করা প্রয়োজন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজকে নানা ক্ষেত্রে সামাজিক অবক্ষয় হয়েছে। ছোটবেলায় আমরা গুণীজন বাবামাকে সম্মান করার যে শিক্ষাগুলো পেয়েছি, এখনকার প্রজন্মের কাছে সেটা সেভাবে দেখা যাচ্ছে না। বিশ্বব্যাপী একটা অবক্ষয় হয়েছে। আমাদের দেশও সেই অবক্ষয় থেকে মুক্ত থাকেনি। অবস্থায় স্কুলে নৈতিক শিক্ষা দেওয়া প্রয়োজন, সেখানে গুরুজনদের প্রতি দায়িত্বকর্তব্য কী সেটা শেখানো হবে। পারিবারিকভাবে শিক্ষা দেওয়া প্রয়োজন, পরিবারের গুরুজন বৃদ্ধ হয়ে গেলে সেই শিক্ষা দিলে হবে না। সন্তানের বয়স যখন ১২ বছর তখন থেকে তাকে শিক্ষা দিতে হবে।
তথ্যমন্ত্রী বলেন,‘ আমি শিক্ষার্থীদের নিয়ে আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গেলে সবসময় বলি, আজকে তোমার বাবামা তোমাকে আদরযতœ করে বড় করছে। তুমি যখন তরুণতরুণী বা যুবকযুবতী হবে তখন তোমার বাবামা তোমার সন্তানের মতো। তোমাদেরকে আজকে যে স্নেহে লালনপালন করছে, তারা যখন বয়স্ক হয়ে যাবে তখন একই স্নেহে লালনপালন করবে। এই শিক্ষাটা যদি এখন থেকে পরিবারে দেয়া না হয়, স্কুলে দেয়া না হয় তাহলে তাকে তো পরে সেভাবে বুঝানো যাবে না।
এসব বিষয়ে স্কুলের শিক্ষার্থীদের নিয়ে সিনিয়র সিটিজেন সোসাইটি বিতর্ক প্রতিযোগিতা, সেমিনার আয়োজন করতে পারে বলেও মত দেন তথ্যমন্ত্রী

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*