ভুল তথ্যের ভিত্তিতে চাল-আটাসহ আটকের ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান মমিনুল ইসলাম

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এম. আর. মিজান , দিনাজপুর থেকে :  মিথ্যা ও ভুল তথ্যের ভিত্তিতে আটক করা ও ওএমএস কর্মসূচীর চাল-আটা জব্দ করে থানায় এনে পরে ছেড়ে দেয়া ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন দিনাজপুর সদর উপজেলার ৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মমিনুল ইসলাম। তিনি বলেন, আর বিষয়টি নিয়ে কিছু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরে আমাকে চাল চুরির যে অপবাদ দেয়া হয়েছে আমি তারও তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তিনি এ হয়রানী তথা মানহানী করায় তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবী জানিয়েছেন।

২১ এপ্রিল বুধবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক প্রতিবাদলিপিতে তিনি এ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদলিপিতে তিনি বলেন, ‘ওএমএস’ কর্মসুচীর চাল ও আটা বিতরন করতে করতে হঠাৎ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বিতরণ বন্ধ হয়ে গেলে কয়েকজন ডিলার সংরক্ষনের স্বার্থে আমার গুদামে ওই চাল ও আটা মজুদ রাখে। যা তাৎক্ষনিকভাবে দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও দিনাজপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে অবহিত করা হয়। যা সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ২০ এপ্রিল আমাকে আটক ও গুদামে রক্ষিত চাল-আটা জব্দ করার পর লিখিতভাবে জানিয়েছেন। এছাড়াও ওই ওএমএস’র চাল-আটা সর্বশেষ বিতরনের আগে গ্রহন এবং বিতরনের সমস্ত কাগজপত্রাদি কোতয়ালী থানায় প্রদর্শন করা হয়। সবকিছু দেখে অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট প্রমাণিত হওয়ায় কোতয়ালী থানা থেকে আমাকে চাল-আটাসহ ছেড়ে দেয়া হয়। অথচ কে বা কারা অভিযোগ দেয় যে, “৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মমিনুল ইসলাম ওএমএস কর্মসুচীর আওতায় গরীব দুখী অসহায় মানুষের জন্য খাদ্য অধিদপ্তরের বরাদ্দকৃত ১০টাকা কেজি দরের চাল এবং ১৮টাকা কেজি দরের আটা বিতরন না করে তার গুদামে স্টক করে রেখেছে।” তথ্য পেয়ে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সহকারী কমিশনারের (ভূমি) নেতৃত্বে যৌথ বাহিনী আমার ভাড়াকৃত মিলের গোডাউনে অভিযান পরিচালনা করে। সেখানে ডিলারদের রক্ষিত ওএমএস এর প্রায় ২ হাজার কেজি চাল এবং ২ হাজার ৫শ কেজি আটা জব্দ করে এবং আমাকে আটক করে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে নিয়ে যায়। সেখান থেকে আমাকে দিনাজপুর কোতয়ালী থানায় পাঠানো হয়। থানায় জিজ্ঞাসাবাদ এবং তদন্ত শেষে কোতয়ালী থানার ওসি আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের কোন সত্যতা না থাকায় ছেড়ে দেন।

প্রতিবাদলিপিতে তিনি আরো বলেন, উপরোল্লেখিত ঘটনাটিই পুরো সত্য ঘটনা। এরপরও কতিপয় মিডিয়া আমাকে জড়িয়ে চাল চুরির কল্পকাহিনী প্রকাশ করেছে। যা সত্যের অপলাপ মাত্র। প্রকৃত সত্য ঘটনা না জেনে অতি-উৎসাহী হয়ে এমন সংবাদ প্রকাশ অত্যন্ত দুঃখজনক। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে ভবিষ্যতে এমন সংবাদ প্রকাশের পূর্বাহ্নে যথার্থতা যাচাইয়ের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর আহবান জানাচ্ছি। আর ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরূদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে আশু ব্যবস্থা গ্রহনের জন্যও আমি সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবী জানাচ্ছি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*