যেকোনো দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রী মানুষের পাশে থাকেন : হুইপ ইকবালুর রহিম

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পজিটিভ বিডি নিউজ ২৪ ডট কম (দিনাজপুর): জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বলেছেন, শুধু করোনায় নয়, যেকোনো দুর্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় মানুষের পাশে থাকেন। করোনার এই ভয়াবহ মুহূর্তেও ঈদের আনন্দ যেন অসহায় ও দরিদ্রদের বঞ্চিত না করে সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই উপহার অব্যাহত রেখেছেন।

সোমবার দিনাজপুর জিলা স্কুল মাঠে অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার অর্থ বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। এদিন শহরের ১২টি ওয়ার্ডের ৪০০ অসহায় ও দুস্থদের মাঝে জনপ্রতি ৫০০ টাকা প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান করা হয়।

হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, দেশের প্রতিটি দুর্যোগেও কোনো মানুষ না খেয়ে থাকেনি। কোনো মানুষ মারা যাননি। পর্যাপ্ত পরিমাণ চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে। খাদ্য মজুদ রয়েছে। আর বিএনপি-জামায়াত সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে খাদ্যের অভাবে মানুষ মরেছে। এখন আর খাদ্যের সংকট নেই। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর পর্যাপ্ত পরিমাণ খাদ্য মজুদ রয়েছে। মানুষ এখন শান্তিতে রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে করোনার প্রথম ঢেউ সফলতার সঙ্গে মোকাবিলা করা হয়েছে। দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলার ক্ষেত্রেও শেখ হাসিনার সময়োপযোগী সঠিক পদক্ষেপের কারণে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

এসময় আরও বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকী, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শচিন চাকমা, দিনাজপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদ সরকার, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএইচ এম মাগফুরুল হাসান আব্বাসী, ভাইস চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম সোহাগ, দিনাজপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র আবু তৈয়ব আলী দুলাল, শহর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. রায়হান কবীর সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম খালেকুজ্জামান রাজু ও কোতয়ালী থানার ওসি মোজাফর হোসেন প্রমুখ।

একইদিন হুইপ ইকবালুর রহিম দিনাজপুর সদর উপজেলার আউলিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার অর্থ বিতরণ করেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*